Menu

Afsana Sharmin

February 7, 2015 - Artists
Afsana Sharmin

Zhuma

প্রতিদিনের যাপিত জীবনে,কেলাহল ব্যস্ততার পাশাপাশি হাজার রকমের সমস্যার রয়েছে গভীর মিতালী। ঘরে-বাইরে,কর্মক্ষেত্র-বিনোদন
সবখানেই কোন না কোন জঠীলতায় বা*ধা জীবন,আর এই সব সমস্যার পাশাপাশি সমান তালে বসবাস করে আনন্দেরাও।প্রচন্ড রোদে
একটি ছাতার মত কাজ করে এইসব সমস্যার *ভাজে লুকিয়ে থাকা আনন্দেরা।ঋতু বৈচিত্র্যে যেমন প্রকৃতি সাজে বিভিন্ন রং-রূপে,ঠিক তেমনি,
মানুষের জীবনের বিভিন্ন সমস্যা আর আনন্দেরাও নতুন নতুন রূপে তুলে ধরে।কখনো গ্রীষ্মের খড়ো রোদের মত পুড়িয়ে যায়,কখনো বর্ষার
শীতল জলে ভিজিয়ে যায়। শরতের শূভ্র মেঘের স্পর্শে মনের আকাশে স্বচ্ছতার ঢেউ তুলে যায় নির্মলতা।হেমন্তে বাতাস ছুটে ফসল তোলার গান
শুনিয়ে,নবান্নের ধানে ধানে উৎসবে মাতিয়ে। শীতকাল জড়তায় পাতাঝরানিয়া সুর তোলে বৈষ্ঞবী কোকিলের সুরে, বলে যায় বসন্তের
আগমনের কাল।আসে বসন্ত,রঙে রঙে সাজন্ত। সময়ের সাথে সাথে ঋতূ বৈচিত্রের সুষমার পরিবর্তন হয়ে রূক্ষতার স্থায়ীত্ব হয়েছে দীর্ঘ, জীবন
ও তাই।তবুও,ক্রমাগত রূক্ষতায় হঠাৎ এক পশলা বৃষ্টি ভেজার আনন্দ,অনেক উচ্ছলতায় ভরিয়ে দিয়ে যায় নিরানন্দের ভূবন।সব কিছু
নিয়েইতো জীবন। আর জীবনটাকে অর্থবহ করে তোলাই হলো জন্মের উদ্দেশ্য।মুহুর্তের মাঝে লুকিয়ে থাকে জীবনের আনন্দঘন সময় গুলো,
মূহুর্তের মাঝেই সৃষ্টি হয় জন্মের উদ্দেশ্য।প্রতিটি মুহুর্তই কানে কানে এসে বলে দিয়ে যায় আত্মপরিচিতি,প্রতিটি মুহুর্তই যেনো আমাদের চিনতে
শেখায় নিজেকে,নিজের জগৎটাকে।ক্রমাগত চিনতে চিনতে সামনের দিকে এগিয়ে যাওয়া,এগিয়ে যাওয়া অদৃশ্য নিয়তির পথে।
চলতে চলতে পথের পরে পড়ে থাকা অনূষঙ্গদের কুড়িয়ে নিয়ে যেতে যেতে ভাবি কে আমি?

আমার জীবন উপলব্ধির দেয়ালে কষাঘাত করে জেনে যাই আমার সময়কে-যা আমার চারপাশ ঘিরে মুহুর্ত মুহুর্ত বিরাজমান।সে মুহুর্ত আমায়
যা নিয়ে তাড়িত করে, সেই মুহুর্তটাকেই বন্ধী করি আমি আমার শিল্পকর্মে।আমার কাজ সব সময় আমাকেই তুলে ধরে। আমার যাপিত
জীবনের স্বপ্ন-ক্রন্দন,ভালবাসা-বন্ধন,সমস্যা-আনন্দ,অথবা সমাজবদ্ধ নিয়মতান্ত্রিকতায় নিজের অস্তিত্বের টানাপোড়ন,এই সবই আমার কাজে
মূর্ত হয়ে আসে সময়ের আবর্তে। এক কথায়, আমার সময়ই আমার কাজের মূল উপাত্ত বা বিষয় ….
To know more